নাপিত্তাছড়াঃ বাঁধভাঙা রূপের কোলাহল

আহমাদ ইশতিয়াক

ঝিরিপথের অদ্ভুত একটি ডাক আছে। ঠিক ঝুম শ্রাবণের সন্ধ্যে বেলার অবিরাম বর্ষণের ধ্বনি। এক ক্লান্তিহীন নেশার মতো। মুগ্ধতা ক্রমশ ছাড়িয়ে যায়। নিশ্চুপ হয়ে অনুভব করতে হয়। পাথরের মাঝ দিয়ে জলের ধারা বয়ে যায়, দুপাশে অচেনা বৃক্ষের পাশে নিদারুণ সৌন্দর্যের তরু প্রাণ। একপাশ দিয়ে অভিযাত্রী ছুটে। কিন্তু কখনোবা বিশ্রামের আদলে জলের ছটায় মুখ ভেজায়। এক অবিন্যস্ত রূপ মাধুর্য।পাহাড়ের সারিগুলো প্রাচীরের মতো আগলে রাখে। জলের সুপ্ত কণা অস্তিত্বের রূপ ফুটিয়ে তুলে নিপুণ ভাবে। পথের পিচ্ছিল পাথর গুলো কখনো থমকে দাঁড়ায়। একপাশ হতে জলের ধারা বয়ে যায়। বুনো লতার ঝোপে ভোরের সূর্যের আলোটা ঠিকরে বেরোয়।অপ্রকাশ্য সন্ধিক্ষণ মায়া জড়িয়ে রাখে। তানপুরার তান রাঙ্গানো বিমূর্ত এক প্রদীপ জ্বালিয়ে দেয়।

 

জাকিরের টেক ডায়েরি

পড়ন্ত বেলায় ঝিরিপথের সৌন্দর্যের তুলনা নেহাতই বোকামি। বিকেলের আলোটা ক্রমশ ফুরোয়। পাথরের খাঁজে সুপ্ত আলোটি জলের ধারায় রূপোর সদৃশ। মৃদু ঝংকারে বহে জলের রাশি। শেষ আলো মিলিয়ে যায় সন্ধ্যে গড়ায় নিশির বুকে।ভোরের এক অপূর্ব দৃষ্টি প্রতিমা টের পাওয়া যায় ঝিরিপথে। মৃদু স্রোতের ঘ্রাণ আবিষ্ট করে পদে পদে। প্রথম প্রহরের আলো ঝিরিপথ মাড়ায় না। প্রতিচ্ছবি বয়ে বেড়ায় লতার ঝোপে। স্তব্ধ দৃষ্টির অনুভবে এক নিদারুণ প্রশান্তির মায়ায় জড়িয়ে নেয়। আঁকা বাঁকা পথের মৃদঙ্গের বানের মতো জলের ধারা অনুভব করতে খানিকটা সময় লাগে। যেনো হিয়ার মাঝে লুকিয়ে ছিলো, কিন্তু এতোকালেও দেখা পাইনি।

the outsider

শ্রাবণের ঝিরিপথ হয়ে উঠে রূপের কোলাহলে। প্রকাশ করে তার সৌন্দর্যের অপ্রকাশিত রূপটিও। আমন্ত্রণ জানায় তার রাজ্যে। যেখানে আমরা মুগ্ধতায় গ্রস্ত এক পথিক। ঠিক আঁচলে জড়িয়ে রাখা নারী। জলের সুপ্ত বর্ষণ।

ঝিরিপথের সৌন্দর্য ফুরোয় না। এ যে বাঁধভাঙা। অনুভব করতে হয় প্রতিটি মুহূর্তকে। হয়তো পাথরের বুক বেয়ে বয়ে চলা জলের সারিতে এক ক্ষুদ্র শামুক। হয়তো শ্রাবণের অঝোর বর্ষণে পত্র পল্লবে তানপুরার তান ধ্বনি। ঝিরিপথ এমনই।

Zakir_Hossain

নাপিত্তাছড়া ট্রেইল যেভাবে যাবেন- ঢাকা অথবা চট্টগ্রাম গামী যেকোনো বাসে সীতাকুণ্ডের আগে ছোট কমলদহ বাজার। বাজারের পরের রাস্তা আর বাইপাস যেখানে মিলেছে সেখানে নামবেন। রাস্তার পূর্ব দিকে ঢুকবেন। বাকিটা রাস্তা ধরা গেলে আর ছড়ার পথ ধরে এগিয়ে যাবেন।

Share This Post

এরকম আরো আর্টিকেলস

পরের লেখা

আর্টিকেলটি নিয়ে আলোচনা

Login to your account below

Fill the forms bellow to register

Retrieve your password

Please enter your username or email address to reset your password.